বুধবার, ১৯ মে ২০২১, ০৪:৫৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
কুমিল্লার বুড়িচংয়ে কিন্টারগার্ডেন শিক্ষকদের মাঝে ঈদ উপহার বিতরণ কুমিল্লার চান্দিনা থানায় সহকারী পুলিশ সুপার দাউদকান্দি সার্কেল সিনিয়র অফিসার এর বিশেষ উদ্যোগে চান্দিনা দিনমজুর মানুষের মাঝে খাদ্য দ্রব্য ঈদ উপহার বিতরণ করা হয়েছে কুমিল্লা ছত্রখীল ফাঁড়ী পুলিশের অভিযানে বিপুল পরিমান ভারতীয় ঔষধ ও গাঁজা উদ্ধার কুমিল্লার সহকারি পুলিশ সুপার সার্কেল দাউদকান্দি সিনিয়র অফিসার মোহাম্মদ জুয়েল রানা গতকাল বিকেল চারটায় দাউদকান্দি উপজেলার বিভিন্ন স্থানে বেঁধে ভাসমান বেদের জনগোষ্ঠীর পাশে ইদ উপহার বিতরণ করেছেন নিজ অর্থায়নে ইজিপিপি তালিকায় ইউপি সদস্যের স্ত্রী খাদ্যবান্ধাব কর্মসূচিতে অনিয়মের অভিযোগ প্রভাবশালীর ঝুকিপূর্ণ গ্যাস বানিজ্য গুড়িয়ে দিলেন সার্কেল এএসপি।” কুমিল্লার সহকারী পুলিশ সুপার দাউদকান্দি সার্কেল সিনিয়র অফিসার জুয়েল রানার বিশেষ উদ্যোগ ‘মাস্ক নাই তো সেবা নাই বুড়িচংয়ে মতিন খসরুর আত্মার মাগফেরাত কামনায় এতিমদের নিয়ে ইফতার ও দোয়া মাহফিল “ঘুরে ঘুরে মাস্ক বিতরণ করছেন সার্কেল এএসপি” মান্যবর পুলিশ সুপার, মো জুয়েল রানা ৯ম বারের মত জাটকা আটক করলেন সার্কেল এএসপি জুয়েল রানা
ব্রেকিং নিউজ :

প্রভাবশালীর ঝুকিপূর্ণ গ্যাস বানিজ্য গুড়িয়ে দিলেন সার্কেল এএসপি।”

“প্রভাবশালীর ঝুকিপূর্ণ গ্যাস বানিজ্য গুড়িয়ে দিলেন সার্কেল এএসপি।”

মোঃ আশিকুর রহমান রাসেল চীনের স্টাফ রিপোর্টার কুমিল্লা ৭১ টিভি

কুমিল্লার দাউদকান্দি ও চান্দিনায় কাভার্ডভ্যান বোঝাই করে ঝুঁকিপূর্ণভাবে শত শত সিলিন্ডার রেখে অবৈধভাবে গড়ে উঠা ৫ টি অবৈধ ও মারাত্নক ঝুকিপূর্ণ ভ্রাম্যমাণ সিএনজি পাম্প বন্ধ করে দিলেন সার্কেল সিনিয়র এএসপি মোঃ জুয়েল রানা।

দাউদকান্দির পদুয়া ইউনিয়নের নিশ্চিন্তপুরে ও দৌলতপুরের ইউনিয়নের নায়েরগাও বাজারে ২ টি এবং চান্দিনার পৌর এলাকার বাগানবাড়িতে, মহিচাইল ইউনিয়নে ও দোল্লাই নবাবপুর বাজার এলাকায় ৩ টি অবৈধ পাম্প থেকে সিএনজিচালিত অটোরিকশা ও গাড়িতে গ্যাস সরবরাহ করে মানুষের কাছ থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছিলো প্রভাবশালীচক্র। কোনরকম নিরাপত্তা ব্যবস্থা না থাকায় অনুমোদনবিহীন এসব স্টেশনে গ্যাসের সিলিন্ডার বিস্ফোরণ, অগ্নিকান্ডসহ বড় ধরনের দুর্ঘটনার প্রবল শঙ্কা বিরাজ করে।

যোগদানের মাত্র ২ মাসের মধ্যে এই অসাধ্য কাজ সাধন করেন দাউদকান্দি-চান্দিনার সার্কেল এএসপি মোঃ জুয়েল রানা। সর্বশেষ দৌলতপুরের মঈন চেয়ারম্যানের সিএনজি পাম্প গুড়িয়ে দিয়ে এই অভিযানের ইতি টানেন সার্কেল এএসপি। প্রতিটি পাম্প এলাকার প্রভাবশালীদের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত ছিলো। তবে সার্কেল এএসপি জুয়েল রানার সামনে কেউ বাধা হয়ে দাড়ানোর সাহস করেনি।

একটি খালি জায়গার ওপরে ত্রিপল টানিয়ে মেশিন স্থাপন করে গ্যাস সরবরাহ করা হচ্ছিলো। প্রতি ঘনমিটার গ্যাস বিক্রিতে সরকারি নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে বাড়তি সাড়ে ৫ টাকা হাতিয়ে নেওয়া হত এই উপায়ে।
প্রতিটি পাম্পে ২টি করে কাভার্ডভ্যান ও একটি গ্যাস সরবরাহের মেশিন থাকতো। প্রতি কাভার্ডভ্যানে অন্তত ১শ গ্যাস সিলিন্ডার থাকে। ওই কাভার্ডভ্যানের গ্যাস সিলিন্ডারের সাথে সিরিজ সংযোগ দিয়ে কন্ট্রোল মেশিনের মাধ্যমে সারি-সারি সিএনজি অটোরিকশায় গ্যাস সরবরাহ করা হয়। প্রতি ঘনমিটার গ্যাস ৫১ টাকা মূল্যে বিক্রি করা হয় যেখানে বাজার মূল্য ৪৫-৪৬ টাকা।

মহাসড়ক সংলগ্ন কয়েকটি গ্যাস পাম্পের সাথে চুক্তি করে ওই গ্যাস আনা হয়। জানা যায় যে পাম্প থেকে কাভার্ডভ্যানে করে গ্যাস আনা হয় ওইসব পাম্পগুলোতে মিটার ও রেগুলেটর মেশিনের বাইরের লাইন টেম্পারিং করে বিশেষ কৌশলে কাভার্ডভ্যানে গ্যাস সরবরাহ করা হয়। যা মূল মিটারের হিসাবে আসে না এবং তা থেকে সরকার সম্পূর্ণ রাজস্ব আদায় থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এতে সিএনজি পাম্পের অসাধু মালিক ও সংশ্লিষ্টরা রাতারাতি কোটি-কোটি টাকা অবৈধভাবে লুটে নিচ্ছেন। আর ওইসব কাভার্ডভ্যানগুলোর গ্যাস অনেকটা কম দামে কিনে এনে সরকারের নির্ধারিত দামের চেয়ে অধিক মূল্যে বিক্রি করে ‘আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ’ বনে যাচ্ছেন অসাধু কারবারিরা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Our Like Page

প্রযুক্তি সহায়তায় Freelancer Zone